করোনাকেন্দ্রিক বিধিনিষেধের কারণে গণপরিবহন বন্ধ ছিল দীর্ঘদিন। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় এবারের ঈদুল ফিতরে মাইক্রোবাস অনানুষ্ঠানিকভাবে গণপরিবহন হয়ে উঠেছিল। অর্থাৎ ঈদে যাঁরা গ্রামের বাড়িতে আসা-যাওয়া করেছেন, তাঁদের অনেকেরই প্রধান অবলম্বন ছিল মাইক্রোবাস। তাই সরকার এবার মাইক্রোবাসকে আনুষ্ঠানিকভাবে গণপরিবহন হিসেবে স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে।

আজ বৃহস্পতিবার সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বাজেট বক্তৃতায় বলেন, ‘নছিমন ও লেগুনার মতো দুর্ঘটনাপ্রবণ যানবাহনের ব্যবহার নিরুৎসাহিত করে বিকল্প গণপরিবহন হিসেবে মাইক্রোবাস ব্যবহারে উৎসাহিত করতে চাই। সে জন্য মাইক্রোবাস আমদানিতে শুল্কহার কমানোর প্রস্তাব করছি।

শুধু মাইক্রোবাস নয়, দাম কমবে জ্বালানি সাশ্রয়ী ‘মপেড’ মোটরসাইকেলেরও। কারণ, মপেড মোটরসাইকেল ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও জনসাধারণের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই সাশ্রয়ী মূল্য নিশ্চিত করতে মপেড আমদানিতে শুল্কহার কমানোর প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

মপেড হচ্ছে মোটরসাইকেলের তুলনায় নকশায় ছোট। এর ক্ষমতা ৫০ সিসির মধ্যে।

পরিবেশবান্ধব হাইব্রিড গাড়ির ব্যবহার উৎসাহিত করতে এ ধরনের গাড়ি আমদানির ওপর শুল্কহার পুনর্বিন্যাস করার কথাও বলেন অর্থমন্ত্রী।

বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী মোটরসাইকেল উৎপাদনকারী ও সংযোজনকারী শিল্পের জন্য বিদ্যমান প্রজ্ঞাপনে নতুন কয়েকটি কাঁচামাল অন্তর্ভুক্ত করে পশ্চাৎ–সংযোগ শিল্পের প্রসারে প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

এ ছাড়া ডাম্পার ও টিপার সংযোজনকারী শিল্পের সুরক্ষায় সিকেডি অবস্থায় ডাম্পার বা টিপার আমদানির ক্ষেত্রে শুল্কহার কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে বাজেটে।

আপনার মতামত দিন